বাংলার জন্য ক্লিক করুন
   শুক্রবার, ১৮ জুন 2021 | ,২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৭
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
চলতি মাসেই এইচএসসির ফল

করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘ সময় পেছানোর পর চলতি ডিসেম্বর মাসেই এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে। আর সেজন্য চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিচ্ছে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড। 

রোববার (২০ ডিসেম্বর) গণমাধ্যমকে এ তথ্য দিয়েছেন আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এসএম আমিরুল ইসলাম।

অধ্যাপক আমিরুল ইসলাম বলেন, ডিসেম্বরের মধ্যে এইচএসসির ফল ঘোষণা করা হবে। সে জন্য আমরা চূড়ান্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করছি।

গত ৭ অক্টোবর শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানিয়েছিলেন, করোনা মহামারির মধ্যে প্রাথমিক সমাপনী ও জেএসসির মতো এবারের এইচএসসি পরীক্ষাও নেয়া হবে না। তবে অষ্টম শ্রেণির সমাপনী এবং এসএসসি ও সমমানের ফলাফলের গড় করে এবারের এইচএসসি ও সমমানের ফলাফল নির্ধারণ করা হবে বলে জানান মন্ত্রী। আর এই ফল প্রকাশ ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই করা হবে বলেও তিনি জানিয়েছিলেন।

শিক্ষামন্ত্রীর দেয়া এই বক্তব্যের প্রসঙ্গ তুলে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এসএম আমিরুল ইসলাম বলেন, আশা করছি- শিক্ষামন্ত্রী মহোদয়ের কমিটমেন্ট অনুযায়ী আমরা রেজাল্ট তৈরি করতে পারব।

করোনা মহামারির কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। দফায় দফায় সেই বন্ধের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে, যা এখনও চলমান। সেজন্য গত ১ এপ্রিল থেকে এবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা হওয়ার কথা থাকলেও তা বাতিল করা হয়।

 
চলতি মাসেই এইচএসসির ফল
                                  

করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘ সময় পেছানোর পর চলতি ডিসেম্বর মাসেই এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে। আর সেজন্য চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিচ্ছে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড। 

রোববার (২০ ডিসেম্বর) গণমাধ্যমকে এ তথ্য দিয়েছেন আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এসএম আমিরুল ইসলাম।

অধ্যাপক আমিরুল ইসলাম বলেন, ডিসেম্বরের মধ্যে এইচএসসির ফল ঘোষণা করা হবে। সে জন্য আমরা চূড়ান্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করছি।

গত ৭ অক্টোবর শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানিয়েছিলেন, করোনা মহামারির মধ্যে প্রাথমিক সমাপনী ও জেএসসির মতো এবারের এইচএসসি পরীক্ষাও নেয়া হবে না। তবে অষ্টম শ্রেণির সমাপনী এবং এসএসসি ও সমমানের ফলাফলের গড় করে এবারের এইচএসসি ও সমমানের ফলাফল নির্ধারণ করা হবে বলে জানান মন্ত্রী। আর এই ফল প্রকাশ ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই করা হবে বলেও তিনি জানিয়েছিলেন।

শিক্ষামন্ত্রীর দেয়া এই বক্তব্যের প্রসঙ্গ তুলে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এসএম আমিরুল ইসলাম বলেন, আশা করছি- শিক্ষামন্ত্রী মহোদয়ের কমিটমেন্ট অনুযায়ী আমরা রেজাল্ট তৈরি করতে পারব।

করোনা মহামারির কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। দফায় দফায় সেই বন্ধের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে, যা এখনও চলমান। সেজন্য গত ১ এপ্রিল থেকে এবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা হওয়ার কথা থাকলেও তা বাতিল করা হয়।

 
বিজয়ের দিনে শ্রদ্ধা ভালোবাসায় শহীদের স্মরণ
                                  

আজ ১৬ ডিসেম্বর। মহান বিজয় দিবসের ৪৯তম বার্ষিকী। বাঙালি জাতির জীবনে সবচেয়ে গৌরবোজ্জ্বল অর্জনের স্মৃতিবিজরিত এক দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানি হানদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের মধ্যদিয়ে বীরের জাতি হিসেবে পৃথিবীর মানচিত্রে আত্মপ্রকাশ ঘটে বাঙালির। জাতি অর্জন করে এক স্বাধীন সার্বভৌম ভূখণ্ড।

 

দীর্ঘ ৯ মাস বুকের তাজা রক্তে বাংলার মাটি সিক্ত হওয়ার পর ১৯৭১ সালের এই দিনে স্বাধীনতার স্বাদ গ্রহণ করে জাতি। বুকে ধারণ করে বিজয়ের লাল-সবুজ পতাকা। দিনটিকে ঘিরে গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় বীর সন্তানদের স্মরণ করছে গোটা দেশের মানুষ। বাঙালি জাতির জীবনে সবচেয়ে গৌরবোজ্জ্বল অর্জনের স্মৃতিবিজড়িত দিন মহান বিজয় দিবসে শহীদদের ভালোবাসায় সিক্ত করছেন আবাল-বৃদ্ধ-বনিতারা।

একাত্তরের এই দিনে অর্থাৎ ১৬ ডিসেম্বর বিকেলে তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) বর্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পণ করে যৌথ বাহিনীর কাছে। এর মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার রক্তিম সূর্যালোকে উদ্ভাসিত হয় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। সেই থেকে ১৬ ডিসেম্বর আমাদের বিজয় দিবস। প্রতিবছর ভাবগাম্ভীর্যে দিনটি সাড়ম্বরপূর্ণভাবে উদযাপন করা হলেও এবার করোনাভাইরাস নামে অদৃশ্য এক শক্তির বিরুদ্ধে লড়ছে মানুষ। ফলে কিছুটা সীমিত পরিসরে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে দিনটি উদযাপন করছে জাতি।

ভারত ভাগের পর ২৪ বছরের শোষণ-নির্যাতন ও বঞ্চনার পর জাতির ভাগ্যাকাশে এক নতুন সূর্যোদয় ঘটে। প্রভাব সূর্যের রক্তিম আভা ছড়িয়ে পড়ে বাংলাদেশের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে। নতুন বার্তা ছয়ে সমস্বরে একটি ধ্বনি গোটা মানচিত্রে প্রতিধ্বনিত হয়- ‘জয় বাংলা, বাংলার জয়, পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঠেছে, রক্ত লাল, রক্ত লাল, রক্ত লাল’।

এদিকে বাঙালি তার আপন মহিমায় বিজয়ের দিবসের প্রথম প্রহর থেকেই জাতীয় স্মৃতিসৌধে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের ঢলও বাড়ছে। দিনের শুরুতেই রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে প্রতিরক্ষা সচিব শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। স্মৃতিসৌধ ঘিরে ফুলের শ্রদ্ধায় নত হয়ে বীর শহীদদের স্মরণ করছেন সাধারণ মানুষ।

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা থেকে শুরু করে তরুণ যুবক, ছাত্র-শিক্ষক, সাংবাদিক, শিল্পী-বুদ্ধিজীবী, রাজনীতিক, কূটনীতিক, সমাজকর্মীসহ লাখো মানুষ জাতীয় স্মৃতিসৌধের বেদিতে ফুল দিয়ে মহান বীরদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন।

কারো হাতে ফুল কারো হাতে লাল-সবুজের পতাকা। কারো আবার পোশাকে জাতীয় পতাকার রং। সকাল থেকেই জাতীয় স্মৃতিসৌধের পানে ছুটে চলেছেন শহীদদের ভালোবাসায় বরণ করতে। আজ সারা দিনই ৩০ লাখ বীর শহীদ ও সম্ভ্রম হারানো মা-বোনদের কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করবে জাতি।

পরম মমতায় এঁকেছেন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি
                                  

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি, নৌকা, স্মতিসৌধ, পতাকা ও ‌‘লাভ’ চিহ্নের নকশা আর প্রকৃতি একইসূত্রে গাঁথা। লাল-সবুজ ফসলের মাঠে রঙিন লালশাক আর সরিষা রোপণ করে পরম মমতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি ও স্মৃতিসৌধ এঁকেছেন ঈশ্বরগঞ্জের কৃষক আব্দুল কাদির (৪৪)।

 

আব্দুল কাদিরের বাড়ি ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার আঠারবাড়ি ইউনিয়নের পাড়াখালবালা গ্রামে। তিনি হাজি তারা মিয়ার দ্বিতীয় ছেলে।

১ ডিসেম্বর নিজের ৩৩ শতক জমিতে পাড়া খালবলা বন্ধু মহল ক্লাবের সদস্যদের নিয়ে এঁকেছেন অনন্য শিল্পকর্ম। চারদিকে যখন ভাস্কর্য নিয়ে তোলপাড় চলছে সে সময় সরিষা ও লালশাক দিয়ে নিজের জমিতে পরম মায়ায় রূপ দিয়েছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেষ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি। সঙ্গে এঁকেছেন মুজিব শতবর্ষ, স্মৃতিসৌধ, শাপলা ও নৌকা। কাদিরের শৈল্পিক কৃষিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি দেখতে ও ছবি তুলতে জমির পাশেই নির্মাণ করা হয়েছে বাঁশ দিয়ে একটি টাওয়ার। যে দেখতে শতশত মানুষ প্রতিদিন তার ক্ষেত দেখতে ভিড় করছেন।

কৃষক আব্দুল কাদির গণমাধ্যমকে বলছিলেন, আমার গ্রামে একটি বন্ধুমহল ডিজিটাল ক্লাব আছে। আমি সেই ক্লাবের উপদেষ্টা সদস্য। ক্লাবের সদস্যরা আমার কাছে ডিজিটাল পদ্ধতির কিছু একটা করে দেখানোর আবদার করেন। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে আমার মাথায় এই চিন্তা আসে। এরপর স্থানীয় কৃষি বিভাগ থেকে পাওয়া রবি শষ্য সরিষা ও লাল শাকের বীজ কিছু নতুনত্ব করার কথা ভাবি। সেইসঙ্গে কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদ জানাতেই জমিন চাষ করে এমন চিত্রাংকন করি। এতে ক্লাবের সদস্যরা তাকে সহায়তা করেন।

৩য় ধাপের পৌর নির্বাচন ৩০ জানুয়ারি
                                  

তৃতীয় ধাপে ৬৪ পৌরসভা নির্বাচন আগামী ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে। সোমবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন সচিবালয় থেকে নির্বাচনের তফসিল তফসিল ঘোষণা করা হয়।

 

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সিনিয়র সচিব আলমগীর বলেন, তৃতীয় ধাপে ৬৪টি পৌরসভায় ব্যালটের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করা হবে। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোট গ্রহণ করা হবে। তৃতীয় ধাপের নির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ৩১ ডিসেম্বর। যাচাই-বাছাই ৩ জানুয়ারি। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১০ জানুয়ারি। ভোট গ্রহণের তারিখ ৩০ জানুয়ারি।

ইসি সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে দেশে পৌরসভা ৩২৯টি। নির্বাচন উপযোগী পৌরসভা ২৫৯টি। আগামী বছরের জানুয়ারিতে মেয়াদ শেষ হবে ১১টি পৌরসভার। ফেব্রুয়ারির মধ্যে মেয়াদ শেষ হবে ১৮৫টি পৌরসভার। মার্চে শেষ হবে ২৮ পৌরসভার মেয়াদ। এপ্রিল থেকে নভেম্বরে শেষ হবে ৩০টির মেয়াদ।

১৭-১৮ ডিসেম্বর শীতের প্রথম শৈত্যপ্রবাহ
                                  

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ওপর দিয়ে আগামী ১৭ ও ১৮ ডিসেম্বর চলতি শীত মৌসুমের প্রথম শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এর আগে হালকা বৃষ্টিপাতও হতে পারে।

 

শুক্রবার (১১ ডিসেম্বর) আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক বলেন, আগামী ১৭ থেকে ১৮ ডিসেম্বর নাগাদ দেশে প্রথম শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। প্রথমদিকে, দেশের উত্তরাঞ্চলে শৈত্যপ্রবাহ অনুভূত হবে। পরবর্তীতে দেশজুড়ে ও শৈত্যপ্রবাহ অনুভূত হবে। উত্তরাঞ্চলে শৈত্যপ্রবাহ হলেও এর প্রভাবে দেশজুড়ে তাপমাত্রা নেমে আসবে। শৈত্যপ্রবাহের সময় উত্তরাঞ্চলে তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে আসতে পারে।

চলতি কুয়াশাচ্ছন্ন আবহাওয়া আরও দুইদিন স্থায়ী হতে পারে। শৈত্যপ্রবাহের আগে দেশের কোথাও কোথাও হালকা বৃষ্টিপাত হতে পারেও বলেও জানান আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক।

প্রকল্পের মেয়াদ-টাকা বাড়ানোর ধারা বন্ধের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
                                  

উন্নয়ন প্রকল্পের মেয়াদ ও টাকা বাড়ানোর ধারা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  তিনি বলেছেন, যথাসময়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হবে।  প্রকল্প পরিচালকদের (পিডি) ডাকুন।  প্রকল্পের বাস্তবায়ন কেন দেরি হচ্ছে তার কারণ অনুসন্ধান করুন। 

মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে এ নির্দেশ দেন তিনি। বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম।

ড. শামসুল আলম বলেন, ‘কৃষি তথ্য সার্ভিস আধুনিকায়ন ও ডিজিটাল কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ শক্তিশালীকরণ’ প্রকল্পটি অনুমোদন দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, প্রকল্পের বাস্তবায়নের বিলম্বের কারণ কী? ছোটখাটো কাজ করতে কেন এত সময় লাগছে? পিডি কে? এসময় পিডি উপস্থিত ছিলেন না।  কৃষি সচিব নতুন হওয়ায় তিনিও কোনো উত্তর দিতে পারেননি।  কৃষিমন্ত্রীও ছিলেন ছুটিতে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২ বছর মেয়াদ এবং ব্যয় ৬৮ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে কেন ১০৯ কোটি টাকা করা হয়েছে তার কারণ অনুসন্ধান করুন। পিডিদের ডাকুন।

এছাড়া ‘চরখোলা-তুষাখালী মঠবাড়িয়া-পাথরঘাটা সড়ক উন্নয়ন ও প্রশস্তককরণ’ শীর্ষক প্রকল্প অনুমোদন দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এটি একটি পুরনো সড়ক। এই প্রকল্পে কেন এত সময় লাগছে? এবার টাকা বাড়ানো, মেয়াদ বাড়ানোর ধারা বন্ধ করুন। বিরক্তি প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যথাসময়ে প্রকল্প শেষ করতে হবে।

ড. শামসুল আলম আরও জানান,‘পঞ্চবটি হতে মুক্তারপুর সেতু পর্যন্ত সড়ক প্রশস্তকরণ ও এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ’ প্রকল্পের নাম পরিবর্তনের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।  এর পরিবর্তে রাখতে বলেছেন ‘দোতলা সড়ক নির্মাণ’।  কেননা এটি এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের শর্ত পূরণ করে না। এছাড়া এ প্রকল্পে ১০ কোটি টাকা ধরা ছিল পরামর্শক খাতের ব্যয়। সেটি বাড়ানোর দাবি করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব। পরবর্তীতে আরও ১৫ কোটি টাকা বাড়িয়ে মোট ২৫ কোটি টাকা করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। 

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেছেন, সড়ক তৈরিতে গাছ নষ্ট করা যাবে না। সড়ক মানসম্মতভাবে তৈরি করতে হবে। যাতে ভারী যানবাহন চলাচল করতে পারে। এছাড়া দক্ষিণাঞ্চলের সড়কের জন্য একটি মাস্টার প্ল্যান করতে হবে। সে অনুযায়ী রাস্তা তৈরি করতে হবে।  কেননা ওই এলাকায় এখন ভারী যানবাহন চলাচল অনেক বেড়ে যাবে। 

বাবুনগরী-মামুনুলদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা
                                  

ভাস্কর্যবিরোধী বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নেতা মাওলানা মুহাম্মদ মামুনুল হক, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব মোহাম্মদ জোনায়েদ ওরফে জুনায়েদ বাবুনগরী ও সৈয়দ ফয়জুল করিমের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করা হয়েছে। সোমবার (৭ ডিসেম্বর) ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে এ মামলাটি করেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল।

এর আগে রোববার হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির জুনায়েদ বাবুনগরী ও খেলাফত মজলিসের নেতা মাওলানা মামুনুল হক গংদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রবিরোধী মামলা করার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. জিশান মাহমুদ। তিনি ওইদিন বিকালে মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব বরাবর এই আবেদন করেন।-বাংলানিউজ

মামলার আসামি মামুনুল হক গত ১৩ নভেম্বর রাজধানীর তোপখানা রোডের বিএমএ ভবনের মিলনায়তনে বলেছিলেন, ‘যারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের নামে মূর্তি স্থাপন করে তারা বঙ্গবন্ধুর সুসন্তান হতে পারে না। এই মূর্তি স্থাপন বন্ধ করুন। যদি আমাদের আবেদন মানা না হয়, আবারও তৌহিদী জনতা নিয়ে শাপলা চত্বর কায়েম হবে।’

 

একইদিন আসামি সৈয়দ ফয়জুল করিম ধোলাইখালের নিকটে গেন্ডারিয়া নামক স্থানে তার নসিহত শুনতে আসা সাধারণ মুসলমানদের হাত উঁচু করে শপথ পড়িয়ে নেন যে, ‘আন্দোলন করব, সংগ্রাম করব, জেহাদ করব। রক্ত দিতে চাই না, দেয়া শুরু করলে বন্ধ করব না। রাশিয়ার লেলিনের বাহাত্তর ফুট মূর্তি যদি ক্রেন দিয়ে তুলে সাগরে নিক্ষেপ করতে পারে তাহলে আমি মনে করি শেখ সাহেবের এই মূর্তি আজ হোক, কাল হোক খুলে বুড়িগঙ্গায় নিক্ষেপ করবে।’

আসামি মোহাম্মদ জোনায়েদ ওরফে জোনায়েদ বাবুনগরী হাটহাজারীতে বলেন, ‘মদিনা সনদে যদি দেশ চলে তাহলে কোনো ভাস্কর্য থাকতে পারে না।’ তিনি সরকারকে হুঁশিয়ার করে বলেন, ‘ভাস্কর্য নির্মাণ পরিকল্পনা থেকে সরে না দাঁড়ালে আরেকটি শাপলা চত্বরের ঘটনা ঘটবে এবং ওই ভাস্কর্য ছুড়ে ফেলা হবে।’

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার রাতের আঁধারে কুষ্টিয়া শহরের পাঁচ রাস্তার মোড়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভেঙে ফেলে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় জড়িত স্থানীয় মাদরাসার দুই ছাত্র ও দুই শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- কুষ্টিয়া শহরের জুগিয়া পশ্চিমপাড়া ইবনে মাস্উদ (রা.) মাদরাসার হেফজ বিভাগের ছাত্র আবু বক্কর ওরফে মিঠুন (১৯) ও সবুজ ইসলাম ওরফে নাহিদ (২০) এবং শিক্ষক আল-আমিন (২৭) ও ইউসুফ আলী (২৬)। গ্রেফতার দুই মাদরাসাছাত্র পুলিশকে জানিয়েছেন, ইসলামি বক্তা মাওলানা মুহাম্মদ মামুনুল হক ও ফয়জুল করিমের বয়ান শুনে উদ্বুদ্ধ হয়ে তারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুর করেন।

ফের বেড়েছে আক্রান্ত ও মৃত্যু
                                  

করোনাভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৩৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ১৯৮ জন।

সোমবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এক বুলেটিনে দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির সর্বশেষ এই তথ্য জানিয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত ২ হাজার ১৯৮ জনকে নিয়ে দেশে আক্রান্তে সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৭৪৩ জন। আরও ৩৬ জনের মৃত্যুতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬ হাজার ৮৭৪ জন হয়েছে।

গত একদিনে বাসা ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও ২ হাজার ৬৩৬ জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ নিয়ে সুস্থ রোগীর মোট সংখ্যা বেড়ে ৩ লাখ ৯৮ হাজার ৮২৩ জন হয়েছে।

দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গত ৮ মার্চ। এর ১০ দিনের মাথায় ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর খবর আসে।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনে করোনাভাইরাসের উপদ্রব শুরু হয়। এটি বর্তমানে বিশ্বের ২১৩ দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। ১১ মার্চ কোভিড ১৯-কে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ
                                  

করোনার বিস্তার ঠেকাতে মাস্ক পরা নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (০৭ ডিসেম্বর) অনলাইনে মন্ত্রিসভার বৈঠকে তিনি আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠন এবং স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিদের এ নির্দেশ দেন।

 

গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রীরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠকে যোগ দেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সংবাদমাধ্যমকে এসব তথ্য জানান।

করোনাভাইরাস নিয়ে উৎকণ্ঠা, ভয় শেষ না হতেই দ্বিতীয় ঢেউয়ের বিষয়ে সদস্যদের সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। কেবল পশ্চিমা দেশেই নয়, বাংলাদেশেও দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলা করার জন্য প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

কোভিড-১৯ সম্পর্কে এখন বিজ্ঞানীরা সব জানেন না। সময়ের সঙ্গে এটি দুর্বল হয়ে পড়বে নাকি আরও শক্তিশালী হয়ে উঠবে। হার্ড ইমিউনিটি আসলেই সম্ভব কিনা ইত্যাদি প্রশ্নের উত্তর এখনো ধোঁয়াশায়। তবে, বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে যুক্তরাজ্য মার্কিন ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ফাইজার ও জার্মান কোম্পানি বায়োএনটেক উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের টিকাকে সর্বসাধারণের ব্যবহারের জন্য অনুমোদন দিয়েছে। এই দৌড়ে এগিয়ে রয়েছে রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র।

তবে ভ্যাকসিন কবে নাগাদ বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল বা অনুন্নত দেশগুলো পাবে সেটি নিয়ে ধোয়াশা রয়েছে ব্যাপক। তাই ভ্যাকসিন আসার খবরে উচ্ছ্বসিত হওয়ার সুযোগ নেই। আবার ভ্যাকসিনের দাম এবং সহজ লভ্যতা নিয়ে সংশয় থাকায় সতর্কতারও বিকল্প নেই।

দেশে করোনা ভাইরাসের সবশেষ অবস্থা নিয়ে রোববার (০৬ ডিসেম্বর) বিকেলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এতে বলা হয়, এ দিন করোনা আক্রান্ত হয়ে ৩১ জনের মৃত্যু হয়। এতে দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৬ হাজার ৮৩৮ জন। একই সময়ে নতুন করে করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৬৬৬ জন।

এতে মোট শনাক্তের সংখ্যা ৪ লাখ ৭৭ হাজার ৫৪৫ জন হয়েছে। একই সময়ে আরও ২ হাজার ৫৫২ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়েছেন। এতে আক্রান্তের মোট সংখ্যা বেড়ে ৩ লাখ ৯৫ হাজার ৯৬০ জন হয়।

বিশ্বে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি একটি অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত : রাষ্ট্রপতি
                                  

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, শান্তিপূর্ণভাবে বিরোধ নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে বিশ্বে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি একটি অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের ২৩ বছরপূর্তি উপলক্ষে তিনি পার্বত্য এলাকার সকল অধিবাসীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান তিনি।

পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের ২৩ বছরপূর্তি’ উপলক্ষে মঙ্গলবার এক বাণীতে তিনি এ কথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, নৈসর্গিক সৌন্দর্যের অপার আধার বাংলাদেশের তিন পার্বত্যজেলা রাঙ্গামাটি, বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি। যুগ যুগ ধরে পাহাড়ে বসবাসরত বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর বর্ণিল জীবনাচার, ভাষা, কৃষ্টি ও সংস্কৃতি এ অঞ্চলকে বিশেষভাবে বৈশিষ্ট্যমন্ডিত করেছে।

তিনি বলেন, পার্বত্য জেলাগুলোর আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিক উদ্যোগে ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর সরকার কর্তৃক গঠিত পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক জাতীয় কমিটি পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির মধ্যে এক ঐতিহাসিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এর ফলে পার্বত্য জেলাসমূহের দীর্ঘদিনের সংঘাতের অবসান ঘটে। সূচিত হয় শান্তির পথচলা।

আবদুল হামিদ বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম প্রাকৃতিক সম্পদে সমৃদ্ধ ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে অত্যন্ত সম্ভাবনাময় অঞ্চল। শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতায় গঠিত হয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ। শান্তিচুক্তির ফলে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের অবকাঠামোসহ আর্থ-সামাজিক ও সাংস্কৃতিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত হচ্ছে। পার্বত্য জেলাসমূহের উন্নয়ন সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে তিনি দলমত নির্বিশেষে সকলকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান।

করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৫২৫
                                  

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরো ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬ হাজার ৬৪৪ জনে। নতুন করে রোগী শনাক্ত হয়েছে ২৫২৫ জন। মোট শনাক্ত ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৯৩২ জনে দাঁড়িয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার ৫৩৯ জন এবং এখন পর্যন্ত ৩ লাখ ৮০ হাজার ৭১১ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। আজ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

 

এতে আরো জানানো হয়, ১১৮টি পরীক্ষাগারে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৫ হাজার ৫৬৫টি নমুনা সংগ্রহ এবং ১৫ হাজার ৩৭২ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ২৭লাখ ৭২ হাজার ৭০১ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৪৩ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮১ দশমিক ৮৯ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৪৩ শতাংশ।।

৪২ ও ৪৩তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ
                                  

প্রায় চার হাজার পদে নিয়োগ দিতে দু’টি (৪২তম ও ৪৩তম) বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। আজ সোমবার (৩০ নভেম্বর) পিএসসি ওয়েবসাইটে এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তি বলা হয়েছে, ৪২তম বিসিএসটি বিশেষ এবং ৪৩তম বিসিএসটি সাধারণ। ৪২তম বিশেষ বিসিএসের মাধ্যমে চিকিৎসক নেওয়া হবে ২ হাজার। আর ৪৩তম বিসিএসে বিভিন্ন ক্যাডারে ১ হাজার ৮১৪ জন কর্মকর্তা নেওয়া হবে। সব মিলিয়ে প্রায় ৪ হাজার পদে নিয়োগ দেওয়া হবে।

৪৩তম বিসিএসে সবচেয়ে বেশি পদসংখ্যা শিক্ষায় ৮৪৩টি। এ ছাড়া প্রশাসনে ৩০০, পুলিশে ১০০, পররাষ্ট্রে ২৫, অডিটে ৩৫, ট্যাক্সে ১৯, কাস্টমসে ১৪, সমবায়ে ২০, ডেন্টাল সার্জন ৭৫ জন এবং অন্যান্য ক্যাডারে ৩৮৩ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে।

৪২তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আগামী ৭ ডিসেম্বর সকাল ১০টা থেকে অনলাইন আবেদন শুরু হবে। চলবে ২৭ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। প্রার্থীরা পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আবেদনের ফি জমা দিতে পারবেন।

আর আগামী ৩০ ডিসেম্বর সকাল ১০টা থেকে ৪৩তম বিসিএসের অনলাইন আবেদন শুরু হবে। আবেদনের শেষ তারিখ ২০২১ সালের ৩১ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬টা।

৪১তম বিসিএসে প্রিলিমিনারি পরীক্ষার অপেক্ষায় আছেন সাড়ে চার লাখের বেশি প্রার্থী। গত বছরের ২৭ নভেম্বর ৪১তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। এতে বিভিন্ন পদে ২ হাজার ১৩৫ কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়ার কথা রয়েছে। এ ছাড়া ৪০তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা নিয়েছে পিএসসি। এখন মৌখিক পরীক্ষার দিন ঘোষণার অপেক্ষায় আছেন প্রার্থীরা।

৪৩তম বিশেষ বিসিএসের অনলাইন আবেদনের সম্ভাব্য তারিখ ১ ডিসেম্বর। চলবে ৩১ জানুয়ারি ২০২১ সাল পর্যন্ত।

মায়ের কবরে চিরনিদ্রায় শায়িত সাহারা খাতুন
                                  

রাজধানীর বনানী কবরস্থানে মায়ের কবরে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন। শনিবার সকাল ১১টায় বনানী কবরস্থান মসজিদে জানাজার পর তাকে দাফন করা হয়।

বনানীতে জানাজা শেষে জাতীয় ও দলীয় পতাকায় মোড়া কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে। জাতীয় সংসদের স্পিকার, ডেপুটি স্পিকার, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রের পক্ষ থেকেও শ্রদ্ধা জানানো হয়।

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনের কফিনে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন।

আওয়ামী লীগ, ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, আওয়ামী লীগের সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠন ছাত্রলীগ, যুবলীগ, কৃষকলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয় সাহারা খাতুনের কফিনে।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, সাহারা খাতুনকে হারিয়ে আওয়ামী লীগ এবং দেশের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে, যা পূরণ হবার নয়। বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন ছিল সাহারা আপার। দেশের মানুষ, আওয়ামী লীগ হারিয়েছে দেশপ্রেমিক, সততার উজ্জল দৃষ্টান্ত। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হারিয়েছেন বিশ্বস্ত হাতিয়ার।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, সত্তরের গণ-আন্দোলন থেকে রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন শেখ হাসিনার বিশ্বস্ত এই সহযোদ্ধা। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ রেখে নিরবিচ্ছিন্নভাবে কাজ করে গেছেন। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের আইনজীবীদের ঐক্যবদ্ধ করে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলাসহ বহু আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মামলা দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করেছেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি তিনি ছিলেন অবিচল।

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩০, শনাক্ত ২৬৮৬
                                  

করোনাভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এসময় রোগী শনাক্ত হয়েছে ২৬৮৬ জন। শনিবার করোনা সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (মহাপরিচালকের দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

 

বুলেটিনে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সবাইকে স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ-নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, চীনের উহান থেকে বিস্তার শুরু করে গত চার মাসে বিশ্বের ২১৫টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। চীনে করোনার প্রভাব কমলেও বিশ্বের অন্য কয়েকটি দেশে মহামারি রূপ নিয়েছে। দেশে করোনা সংক্রমিত প্রথম রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। তার ১০ দিন পর ১৮ মার্চ প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

করোনায় মূলত শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণ ঘটায়। এর লক্ষণ শুরু হয় জ্বর দিয়ে, সঙ্গে থাকতে পারে সর্দি, শুকনো কাশি, মাথাব্যথা, গলাব্যথা ও শরীর ব্যথা। সপ্তাহখানেকের মধ্যে দেখা দিতে পারে শ্বাসকষ্ট। উপসর্গগুলো হয় অনেকটা নিউমোনিয়ার মত। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ভালো হলে এ রোগ কিছুদিন পর এমনিতেই সেরে যেতে পারে। তবে ডায়াবেটিস, কিডনি, হৃদযন্ত্র বা ফুসফুসের পুরোনো রোগীদের ক্ষেত্রে ডেকে আনতে পারে মৃত্যু।

চীনে ভ্যাকসিন আবিষ্কার হলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাংলাদেশ আগে পাবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
                                  
চীনে করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক (ভ্যাকসিন) আবিষ্কার করা হলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তা বাংলাদেশে আগে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক।
 
সোমবার (২২ জুন) সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান তিনি।
 
চীন থেকে আসা ১০ প্রতিনিধিকে বিদায় জানাতে বিমানবন্দরে উপস্থিত হন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। এ সময় ভিআইপি লাউঞ্জে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, চীন করোনা ভ্যাক্সিন নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। তাদের কাজে অগ্রগতিও অনেক। এই ভ্যাক্সিন আবিষ্কৃত হলে সবার আগে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাংলাদেশকে পাঠাবে বলে চীন সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। চীনে করোনা ছড়িয়ে পড়ার সময়ে বাংলাদেশ যেভাবে পাশে ছিল চীন সরকার সেই উদারতার কথা মনে রেখে বাংলাদেশের জন্য সবার আগে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেবে।
 
প্রতিনিধি দলের বাংলাদেশ সফর নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, কোভিড প্রতিরোধে বাংলাদেশের কাজে চীনা দল সন্তুষ্ট হয়েছে, তবে কভিড মোকাবিলায় আরও কিছু জায়গায় উন্নতি করার সুযোগ রয়েছে বলেও প্রতিনিধি দল সরকারকে জানিয়েছেন। আমরাও সামনের দিনগুলোতে চিহ্নিত জায়গাগুলো নিয়ে আরও কাজ করবো।
 
ভ্যাকসিন আবিষ্কার হলে তা সবার আগে বাংলাদেশ পাবে বলে নিশ্চিত করে প্রেস ব্রিফিংয়ে বক্তব্য রাখেন চীন রাষ্ট্রদূত ঝ্যাং জুয়ো। আরও বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ। স্বাস্থ্যখাতের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
 
সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানান, করোনায় আক্রান্তের হার এভাবে বাড়তে থাকলে আরও দুই হাজার নতুন চিকিৎসক নিয়োগ দেওয়া হবে। পাশাপাশি মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট নিয়োগের কাজও বর্তমানে চলমান রয়েছে। করোনা পরিস্থিতি আগামীতে যেরকম হবে সরকার সেভাবেই বুঝেশুনে পদক্ষেপ নেবে।
 
করোনা পরীক্ষার কিট প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, চাহিদা অনুযায়ী কিট পাওয়া যাচ্ছে না।  কারণ বর্তমান বিশ্বের সব দেশেই কিটের চাহিদা রয়েছে। তবে যা মজুদ আছে তাতে ঘাটতি হওয়ার কথা না। কোনও কারণে সংকট তৈরি হলেও তা খুব দ্রুতই মেটানোর ব্যবস্থা করবে সরকার। কাজেই কিট নিয়ে এই মুহূর্তে উদ্বেগের কোনও কারণ নেই।
 
করোনায় যে হারে প্রতিদিন রোগী বাড়ছে তাতে মানুষ অধিক সচেতন না হলে সব হাসপাতাল করোনা রোগীতে পরিপূর্ণ হয়ে যাবে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, একারণে করোনা মোকাবিলায় দেশের মানুষকে আরও বেশি স্বাস্থ্য সচেতন হতে হবে। পাশাপাশি কোরোনা মোবিবেলায় স্বাস্থ্যখাতে বাজেট আরও বাড়ানো প্রয়োজন।
করোনায় আরও ৩৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩৪৮০
                                  
করোনাভাইরাসে দেশে নুতন করে আরও ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এসময় রোগী শনাক্ত হয়েছে ৩৪৮০ জন। সোমবার করোনা সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (মহাপরিচালকের দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।
 
বরাবরের মতোই বুলেটিনে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সবাইকে স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ-নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানানো হয়।
 
দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত প্রথম রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। তার ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।
 
প্রসঙ্গত, চীনের উহান থেকে বিস্তার শুরু করে গত চার মাসে বিশ্বের ২১৫টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। চীনে করোনার প্রভাব কমলেও বিশ্বের অন্য কয়েকটি দেশে মহামারি রূপ নিয়েছে।
 
করোনাভাইরাস মূলত শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণ ঘটায়। এর লক্ষণ শুরু হয় জ্বর দিয়ে, সঙ্গে থাকতে পারে সর্দি, শুকনো কাশি, মাথাব্যথা, গলাব্যথা ও শরীর ব্যথা। সপ্তাহখানেকের মধ্যে দেখা দিতে পারে শ্বাসকষ্ট। উপসর্গগুলো হয় অনেকটা নিউমোনিয়ার মত। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ভালো হলে এ রোগ কিছুদিন পর এমনিতেই সেরে যেতে পারে। তবে ডায়াবেটিস, কিডনি, হৃদযন্ত্র বা ফুসফুসের পুরোনো রোগীদের ক্ষেত্রে ডেকে আনতে পারে মৃত্যু।

   Page 1 of 80
     জাতীয়
চলতি মাসেই এইচএসসির ফল
.............................................................................................
বিজয়ের দিনে শ্রদ্ধা ভালোবাসায় শহীদের স্মরণ
.............................................................................................
পরম মমতায় এঁকেছেন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি
.............................................................................................
৩য় ধাপের পৌর নির্বাচন ৩০ জানুয়ারি
.............................................................................................
১৭-১৮ ডিসেম্বর শীতের প্রথম শৈত্যপ্রবাহ
.............................................................................................
প্রকল্পের মেয়াদ-টাকা বাড়ানোর ধারা বন্ধের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
বাবুনগরী-মামুনুলদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা
.............................................................................................
ফের বেড়েছে আক্রান্ত ও মৃত্যু
.............................................................................................
মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ
.............................................................................................
বিশ্বে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি একটি অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত : রাষ্ট্রপতি
.............................................................................................
করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৫২৫
.............................................................................................
৪২ ও ৪৩তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ
.............................................................................................
মায়ের কবরে চিরনিদ্রায় শায়িত সাহারা খাতুন
.............................................................................................
২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩০, শনাক্ত ২৬৮৬
.............................................................................................
চীনে ভ্যাকসিন আবিষ্কার হলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাংলাদেশ আগে পাবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
করোনায় আরও ৩৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩৪৮০
.............................................................................................
একজন অসাম্প্রদায়িক চেতনার মানুষকে হারালাম : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
একদিনে মৃত্যু ৩৭, আক্রান্ত ৩২৪০
.............................................................................................
দেশে করোনায় একদিনে মৃত্যু ৪৫, শনাক্ত ৩২৪৩
.............................................................................................
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড মৃত্যু ৫৩, সর্বোচ্চ শনাক্ত ৩৮৬২ জন
.............................................................................................
আরও ৩৪৭১ করোনা রোগী শনাক্ত, নতুন মৃত্যু ৪৬
.............................................................................................
ভাইয়ের শেষ বিদায়ে কান্নায় ভেঙে পড়লেন ফজলে করিম এম়পি
.............................................................................................
ডা. জাফরুল্লাহর শারীরিক অবস্থা ভালো না
.............................................................................................
মানুষকে রক্ষার চেষ্টা করছি প্রাণপণে : প্রধানমন্ত্রী ‘
.............................................................................................
দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩০, আক্রান্ত ২৮২৮
.............................................................................................
দেশে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের নতুন রেকর্ড, মৃত্যু ৩৭
.............................................................................................
দেশে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর রেকর্ড: নতুন মৃত ৪০, আক্রান্ত ২৫৪৫
.............................................................................................
করোনা রোধে আরও স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সম্পৃক্তির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
দেশে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ১৭৬৪, মৃত্যু ২৮
.............................................................................................
একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ২৫২৩, মৃত্যু ২৩
.............................................................................................
দেশে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ২ হাজার ছাড়ালো, মৃত্যু ১৫
.............................................................................................
আরও ২২ করোনা রোগীর মৃত্যু, আক্রান্ত ১৫৪১
.............................................................................................
ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বীর স্ত্রী মারা গেছেন
.............................................................................................
করোনায় আরও ২১ মৃত্যু, আক্রান্ত ১১৬৬
.............................................................................................
করোনা থেকে মুক্তি চেয়ে বিশেষ মোনাজাত
.............................................................................................
মুক্তিযোদ্ধাদের প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা ও ঈদ উপহার
.............................................................................................
আরও ১৯৭৫ করোনা রোগী শনাক্ত, নতুন মৃত্যু ২১
.............................................................................................
ঘরে বসেই ঈদের আনন্দ উপভোগ করুন : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
কোভিড-১৯ এ সর্বোচ্চ মৃত্যুর খবর
.............................................................................................
আম্পানে ক্ষয়ক্ষতিতে মমতাকে সমবেদনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
দেশে করোনায় আরও ২৪ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৬৯৪
.............................................................................................
আম্ফানে ১১০০ কোটি টাকার ক্ষতি
.............................................................................................
করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু ও শনাক্তের রেকর্ড
.............................................................................................
মৃত্যু ১৬ জনের একদিনে দেশে সর্বোচ্চ করোনা রোগী শনাক্ত
.............................................................................................
নতুন ১২৫১ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ২১
.............................................................................................
আসছে ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড়, খুলনা দিয়ে ঢুকতে পারে দেশে
.............................................................................................
আরও ১৬ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৯৩০
.............................................................................................
করোনায় মৃত্যু ১৫ জন নতুন আক্রান্ত রোগী ২০ হাজার ছাড়ালো
.............................................................................................
৫০ লাখ পরিবার পাচ্ছে নগদ অর্থ সহায়তা
.............................................................................................
দেশের সব মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিনদের ‘ঈদ উপহার’ দেবেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................

সম্পাদক ও প্রকাশক মো: আবদুল মালেক, যুগ্ন সম্পাদক: নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া । সম্পাদক র্কতৃক ২৪৪ ( প্রথম তলা ) ৪ নং জাতীয় স্টেডিয়াম, কমলাপুর, ঢাকা -১২১৪ থেকে প্রকাশিত এবং স্যানমিক প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজেস, ৫২/২ টয়েনবি র্সাকুলার রোড, ঢাকা -১০০০ থেকে মুদ্রিত । ফোন:- ০২-৭২৭৩৪৯৩, মোবাইল: ০১৭৪১-৭৪৯৮২৪, E-mail: info@dailynoboalo.com, noboalo24@gmail.com Design Developed By : Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD   BD My Shop