বাংলার জন্য ক্লিক করুন
   রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর 2020 | ,২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৭
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   ফিচার -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
স্মার্টফোনের জন্য ইউটিউবের নতুন ফিচার

জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং সাইট ইউটিউব চমকপ্রদ একটি ফিচার নিয়ে এসেছে স্মার্টফোন গ্রাহকদের জন্য। এখন থেকে হাই ডাইনামিক রেঞ্জ বা এইচডিআর ভিডিও কোয়ালিটি পাওয়া যাবে স্মার্টফোনের ইউটিউব অ্যাপে। ফলে গ্রাহকরা আগের চেয়ে ভালো কোয়ালিটির ভিডিও দেখতে পারবেন। এর আগে শুধুমাত্র  টিভি এবং কম্পিউটারের জন্য ফিচারটি চালু ছিল। বিশাল সংখ্যক গ্রাহকের কথা চিন্তা করে এবার স্মার্টফোনেও সুবিধাটি চালু করেছে কর্তৃপক্ষ।

ইউটিউবের স্মার্টফোন অ্যাপে নতুন এই প্রযুক্তি চালু করার বিষয়ে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে ব্যবহারকারীদের কাছে ইউটিউবকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে পদক্ষেপটি নেওয়া হয়েছে। আশা করছি, গ্রাহকরা আগের চেয়ে অনেক বেশি ভিডিও উপভোগ করতে পারবেন।

ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি মোবাইল কোম্পানি এইচডিআর সাপোর্টেড স্মার্টফোন বাজারে নিয়ে এসেছে। এসব ফোন ব্যবহারকারীরা এখন থেকেই সুবিধাটি উপভোগ করতে পারবেন। তবে যেসব স্মার্টফোন এই প্রযুক্তি সাপোর্ট করে না, তাদের আরও কিছুদিন এই ফিচারটি উপভোগ করার জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

স্মার্টফোনের জন্য ইউটিউবের নতুন ফিচার
                                  

জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং সাইট ইউটিউব চমকপ্রদ একটি ফিচার নিয়ে এসেছে স্মার্টফোন গ্রাহকদের জন্য। এখন থেকে হাই ডাইনামিক রেঞ্জ বা এইচডিআর ভিডিও কোয়ালিটি পাওয়া যাবে স্মার্টফোনের ইউটিউব অ্যাপে। ফলে গ্রাহকরা আগের চেয়ে ভালো কোয়ালিটির ভিডিও দেখতে পারবেন। এর আগে শুধুমাত্র  টিভি এবং কম্পিউটারের জন্য ফিচারটি চালু ছিল। বিশাল সংখ্যক গ্রাহকের কথা চিন্তা করে এবার স্মার্টফোনেও সুবিধাটি চালু করেছে কর্তৃপক্ষ।

ইউটিউবের স্মার্টফোন অ্যাপে নতুন এই প্রযুক্তি চালু করার বিষয়ে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে ব্যবহারকারীদের কাছে ইউটিউবকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে পদক্ষেপটি নেওয়া হয়েছে। আশা করছি, গ্রাহকরা আগের চেয়ে অনেক বেশি ভিডিও উপভোগ করতে পারবেন।

ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি মোবাইল কোম্পানি এইচডিআর সাপোর্টেড স্মার্টফোন বাজারে নিয়ে এসেছে। এসব ফোন ব্যবহারকারীরা এখন থেকেই সুবিধাটি উপভোগ করতে পারবেন। তবে যেসব স্মার্টফোন এই প্রযুক্তি সাপোর্ট করে না, তাদের আরও কিছুদিন এই ফিচারটি উপভোগ করার জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

যে ৬ দেশের মেয়েরা সবচেয়ে বেশি সুন্দরী
                                  

সৌন্দর্যের নির্দিষ্ট কোনও সংজ্ঞা নেই। এরপরও সৌন্দর্যের কিছু মানদণ্ড ঠিক করে বিশ্বের সেরা সুন্দরীদের পুরস্কৃত করা হয়। সেই হিসেবে কোন কোন দেশের মেয়েদের বেশি সুন্দর বলা যায়? জেনে নিন...

১. ভেনেজুয়েলা
সেরা সুন্দরীদের সভা সবচেয়ে বেশিবার আলোকিত করেছেন ভেনেজুয়েলার মেয়েরা। দক্ষিণ অামেরিকার এই দেশের মেয়েরা এখনও পর্যন্ত সাতবার মিস ইউনিভার্স এবং ছয় বার জিতেছেন মিস ওয়ার্ল্ড খেতাব। মোট ১৩ বার সুন্দরীদের আসরে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করা ভেনেজুয়েলাই তাই সবচেয়ে বেশি সুন্দরীদের দেশ।

২. আমেরিকা
আমেরিকার মেয়েরাও সৌন্দর্যের শক্তিতে অনেক এগিয়ে। আটবার মিস ইউনিভার্স এবং তিনবার মিস ওয়ার্ল্ড হয়েছেন সে দেশের মেয়েরা। তাই বেশি সুন্দরীদের দেশের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

৩. ভারত
রিটা ফারিয়া (১৯৬৬) থেকে শুরু করে রাই বচ্চন (১৯৯৪), ডায়না হেডেন (১৯৯৭), যুক্তামুখি (১৯৯৯) এবং প্রিয়াঙ্কা চোপড়া (২০০০) পর্যন্ত মোট পাঁচজন ভারতীয় সুন্দরী এ পর্যন্ত ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ হয়েছেন। ‘মিস ইউনিভার্স’ হয়েছেন দু’জন– সুস্মিতা সেন (১৯৯৪) ও লারা দত্ত (২০০০)। সেরা সুন্দরীদের প্রতিযোগীতায় সাতবার যে দেশের মেয়েরা সেরা হয়েছেন, সে দেশকে তৃতীয় সেরা অনিন্দ্য সুন্দরীদের দেশ না বলে উপায় আছে কি?

৪. পুয়ের্তো রিকো
মাত্র ৯ হাজার ১০৪ বর্গ কিলোমিটারের দেশ পুয়ের্তো রিকোর সুন্দরীদের খ্যাতি বিশ্বের অনেক বড় এবং শক্তিশালী দেশের মেয়েদের চেয়ে বেশি। মিস ওয়ার্ল্ড এবং মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগিতা জয়ের মানদণ্ডে পুয়ের্তো রিকো বিশ্বের চতুর্থ সেরা সুন্দরীদের দেশ। এ পর্যন্ত পাঁচবার মিস ইউনিভার্স এবং একবার মিস ওয়ার্ল্ড মিলিয়ে মোট ছয় বার সেরা সুন্দরী হয়েছেন পুয়ের্তো রিকোর মেয়েরা।

৫. সুইডেন
বিশ্বের প্রায় সব বিষয়েই পরিসংখ্যান এবং তুলনামূলক প্রতিবেদন প্রকাশ করে ওয়ার্ল্ডঅ্যাটলাস ডটকম। বেশি সুন্দরীদের দেশ হিসেবে তাদের বিবেচনায় যুক্তরাজ্যের পরেই রয়েছে সুইডেন। সুইডেনের মেয়েরা এ পর্যন্ত ছয় বার সুন্দরীদের বিশ্ব শিরোপা জিতেছে। তিনবার জিতেছে মিস ওয়ার্ল্ড আর বাকি তিনবার মিস ইউনিভার্স।

৬. ব্রিটেন
কোন দেশের মেয়েরা বেশি সুন্দর তা কীভাবে নিরূপণ করা যায়? ওয়ার্ল্ড অ্যাটলাস ডটকম খুব সহজ অথচ সর্বজনস্বীকৃত একটি পথ বেছে নিয়েছে। যেসব দেশের মেয়েরা ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ ও ‘মিস ইউনিভার্স’ প্রতিযোগিতায় সবচেয়ে বেশিবার জয়ী হয়েছে, তাদেরই এই স্বীকৃতি দিয়েছে তারা। তাতে ছয় নম্বর স্থানটি পেয়েছে ব্রিটেন। এ পর্যন্ত পাঁচবার মিস ওয়ার্ল্ড জিতেছে ব্রিটেনের মেয়েরা।

সূত্র : ওয়েবসাইট

সালমানের বডিগার্ডের বেতন মাসে ১৯ লাখ!
                                  

কানাডিয়ান পপ তারকা জাস্টিন বিবারের বডিগার্ড হিসেবে খবরে উঠে এসেছেন শেরা। শুধু জাস্টিনের কেন, অমিতাভ বচ্চনসহ একাধিক বলিউড সুপারস্টারের দেহরক্ষীর কাজ করেছেন তিনি। বিদেশ থেকে কোনো জনপ্রিয় তারকা এলে আজও প্রথমে ডাকা হয় তাঁকে। তবে অন্য তারকাদের সঙ্গে মাঝে মাঝে দেখা গেলেও সালমান খানের নয়নের মনি শেরা।

এক-আধ দিন নয়, গত ২০ বছর ধরে সালমানের প্রধান দেহরক্ষীর দায়িত্ব পালন করছেন। যে কোনো অনুষ্ঠানে ভাইজানের সঙ্গে দেখা যায় তাঁকে। কিন্তু, বেতন কত শেরার? টাকার অঙ্ক শুনলে বোঝা যাবে উপার্জনের দিক থেকে সেলিব্রিটিদের থেকে কম যান না এই বডিগার্ড। সংবাদসংস্থায় বাংলাদেশি টাকায় ১৯ লাখ টাকা।

তাঁর আসল নাম কিন্তু শেরা নয়। প্রকৃত নাম গুরমিত সিং। মধ্যবিত্ত শিখ পরিবারের সন্তান শেরার শৈশব কেটেছে বাবার মোটর গ্যারাজে কাজ করে। তারইমধ্যে বডি বিল্ডিংয়ে মন দেন। একাধিক বডি বিল্ডিং প্রতিযোগিতায় নাম দিয়ে পুরস্কারও জেতেন। তারপর তারকাদের দেহরক্ষী হিসেবে কাজ পান

ঘুম ভাঙাবে এবার স্মার্টবালিশ!
                                  

সকালে অ্যালার্মের শব্দে ঘুম ভাঙাটা বেশ বিরক্তিকর বটে। তাই আরামের ঘুম শান্তভাবে ভাঙাতে তৈরি করা হয়েছে স্মার্টবালিশ। স্মার্টবালিশ এপ্রিলে কিকস্টার্টার নামের একটি প্রতিষ্ঠান নিয়ে এসেছে।

প্রতিষ্ঠানটির দাবি, স্মার্টবালিশ মানুষের দিন ও রাতের ঘুমে ‘বৈপ্লবিক পরিবর্তন’ আনবে। শুধু ঘুম ভাঙানোই নয়, ঘুমের মান বিশ্লেষণের কাজও করবে এই বালিশ।

স্মার্টবালিশ মাথা রাখার সঙ্গে সঙ্গে বালিশে থাকা সেন্সরগুলো চালু হয়ে যাবে। সকাল হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বালিশের সানরাইজ ফিচার চালু হয়ে যাবে এবং হালকা থেকে গাঢ় আলো বিচ্ছুরণ করে ব্যবহারকারী ব্যক্তির ঘুম ভাঙাবে।

এতে করে ঘুম থেকে উঠেই ফের ঘুমিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে না। বাণিজ্যিকভাবে বিক্রি শুরু হলে প্রতিটি বালিশ কিনতে দাম পড়বে প্রায় ৩০০ ডলার। সূত্র: ইন্টারনেট।

আজ কেমন যাবে: ৪ মে
                                  

নব আলো:মেষ (২১ মার্চ – ২০ এপ্রিল) মেষ আজ রসিকতা করতে গিয়ে পড়তে পারেন মধুর জটিলতায়। পুরনো কোনো বন্ধুর হস্তক্ষেপে জমিসংক্রান্ত সমস্যায় মুক্তি ঘটবে। প্রেমের ক্ষেত্রে কোনো তৃতীয় পক্ষঘটিত সমস্যার মুখোমুখি হতে পারেন। কর্মক্ষেত্রে হতে পারেন গতির আদর্শ। অর্থযোগে শুভ। বিদেশ ভ্রমণের সুযোগ আজ দরজায় কড়া নাড়বে। 
শুভ রং: লাল, বেগুনি ও সাদা
শুভ সংখ্যা: ৩, ৯, ১৭, ২২, ৩৭, ৪৫

বৃষ (২১ এপ্রিল – ২১ মে) বৃষের রয়েছে একটি আবিষ্কার প্রিয় মন। মনকে কাচের বাক্সে রাখবেন না, ওটা খুবই ভঙ্গুর। ঘাতসহ পাইরেক্সের বাক্স খুঁজুন যা টেকসইও হবে। কর্ম ও অর্থযোগ একই সুতোয় গাঁথা, তাই সবকিছুতে মনোযোগী হোন বিশেষভাবে। বন্ধুত্বের অজুহাতে কেউ আজ পকেট সাবাড়ের চিন্তা করবে। ভেবেচিন্তে যা করার সেটাই করুন। 
শুভ রং: আকাশি, কমলা
শুভ সংখ্যা: ৬, ১৭, ১৯, ২৭, ৩২, ৪৪

মিথুন (২২ মে – ২১ জুন) মিথুনদের আজ প্রেমাবাগে একের অধিক কুড়ি দেখা দিতে পারে। কিংকর্তব্যবিমূঢ় চেহারাটা দেখে যে কেউ সুযোগও গ্রহণ করতে চাইতে পারে। ভেতরে ভেতরে অধিক উচ্ছ্বলতা কাজ করলেও বাইরে আজ নিশ্চুপের দিন। আজ অর্থ যোগ না হলেও কিছুতেই অর্থ বিয়োগ হতে চাইবে না। সবমিলে দিনটি বেশ সাজানো গোছানো মনে হবে আপনার কাছে। 
শুভ রং: হালকা সবুজ, ক্রিম
শুভ সংখ্যা: ৫, ১৮, ১৯, ২৫, ৩৪, ৪৭

কর্কট (২২ জুন – ২২ জুলাই) কর্কট তার উদারতার কারণে আজ পড়তে পারেন বিপাকে। পরিবারের সদস্যদের কারও জন্যে দেরি হয়ে যেতে পারে জরুরি কোনো কাজে। ভালোবাসার মানুষকে কাছে পেতে যথেষ্ট সাধ্য সাধনার প্রয়োজন হবে। কর্ম ও অর্থ দুটোই আপনার কাছে সমান সৃজনশীলতা দাবি করে বসবে। দাবি মিটিয়ে দিন, সাফল্যকে কিনে নিন ন্যায্য দামে। 
শুভ রং: হালকা সবুজ, সাদা ও কমলা
শুভ সংখ্যা: ২, ১১, ১৮, ২৩, ৩৩, ৪৫

সিংহ (২৩ জুলাই – ২৩ আগস্ট) সিংহকে রূঢ় বাস্তবতা শেখাবে প্রকৃতি। না চাইতে হতে পারে কিছু অহেতুক অর্থবিয়োগ। রাস্তায় চলাচলে সাবধানতা অবলম্বন করতে বলুন এমন কাউকে যার সঙ্গে আপনার ভবিষ্যৎ জড়িত। কর্মক্ষেত্রে কাটবে ব্যস্ততম সময়। প্রেমময় সন্ধ্যার জন্যে ছোট্ট একটু ত্যাগ স্বীকার করতে হবে। তবে ভেবে নিতে হবে আগেই, যে আপনাকে তার মনের মানুষ ভাবছে তাকে আপনি সত্যিই পূর্ণ মর্যাদা দিচ্ছেন তো? 
শুভ রং: হলুদ, সোনালি
শুভ সংখ্যা: ১, ১২, ৩৭, ৩৯, ৪১, ৪৬

কন্যা (২৪ আগস্ট – ২৩ সেপ্টেম্বর) কন্যা কেন দুশ্চিন্তায় আক্রান্ত, তার কারণ খুঁজতে পেরেশান হয়ে যাবেন সকাল থেকে। যে শেকলাবদ্ধ সমস্যাটি আজ আপনার ওপর বর্তাবে বলে ভাবছেন, তার আশঙ্কা অজান্তেই শেষ হয়ে গেছে। প্রেম করতে গিয়ে হরষে বিষাদ ঘটে যেতে পারে। এ ব্যাপারে সাবধান থাকতে হবে। অফিসে অকারণ চিন্তা কাজের ক্ষতি করবে। অর্থভাগ্য এ আকালে যথেষ্টই প্রসন্ন। 
শুভ রং: ফিরোজা, চকলেট
শুভ সংখ্যা: ৫, ৯, ১৭, ২২, ৩৫, ৪৮

তুলা (২৪ সেপ্টেম্বর – ২৩ অক্টোবর) ভ্রমণে বের হবেন না। দূরের যাত্রাপথ ঠিক একটা সুবিধার নয় আপনার জন্য। মহা মুশকিলে পড়ে যাবেন, যখন কাছে থাকার আশ্বাস দিয়ে দূরে চলে যাবে আপন মানুষ। প্রেমে আজ আনন্দ আসবে। মহা খুশিতে পরিবারের সমস্ত কাজ একাই করে ফেলবেন। এলাকায় সম্মানিত হবেন। অর্থ আসবে না, আবার যাবেও না। 
শুভ রং: ফিরোজা, আকাশি ও সাদা
শুভ সংখ্যা: ৫, ৬, ১৮, ২১, ৩৬, ৪২

বৃশ্চিক (২৪ অক্টোবর – ২২ নভেম্বর) তাড়াহুড়ো করে আপনার সাধনার কাজটি নষ্ট করবেন না। মুখে আপনাকে আজ সবাই বাহবা দিবে কিন্তু কাজের বেলায় কাউকেই পাবেন না। পরিবার থেকে আজ বাণিজ্যের জন্য সহযোগিতা পাবেন। বন্ধুদের কাজ থেকে পাওয়া সুবিধার বলে আপনি আজ নতুন একটা কর্মক্ষেত্রে যুক্ত হতে পারেন। 
শুভ রং: নীল, ঘিয়ে, চকলেট
শুভ সংখ্যা: ১, ২, ৩, ৯, ২২, ৩৪

ধনু (২৩ নভেম্বর – ২১ ডিসেম্বর) বিষণ্ণতা আজ আপনাকে ঘিরে রাখবে, কর্ম যা করেছেন তার জন্য অনুশোচনা হবে। বিপদ আজ ঘুরে ঘুরে আসবে আপনার কাছে। পৃথিবীর সমস্ত রঙ আজ এক মনে হবে। কতদূর পর্যন্ত আপনি ভাবছেন তা আসলেই কি ঠিক ভাবছেন একটু দেখে নিন। শিক্ষাক্ষেত্রে সুফল আসবে না, শিক্ষকদের বঞ্চনা পাবেন। 
শুভ রং: আকাশি ও বেগুনি
শুভ সংখ্যা: ৩, ৯, ১৭, ৩৮, ৪০, ৪৮

মকর (২২ ডিসেম্বর – ২০ জানুয়ারি) একদল জোনাকি আজ আপনাকে মুগ্ধতা দিবে। সে জোনাকি খুঁজে পেতে হলে আপনাকে ভ্রমণে বেরিয়ে পড়তে হবে। আর আপনার জন্য আজ ভ্রমণ শুভ। শারীরিক জটিলতা লেখা দিবে। মুগ্ধতা বেড়ে যাবে অনেকাংশে। প্রিয় মানুষ যদি আজ নাও আসে তবুও অপেক্ষা করুন। কর্মক্ষেত্রে বিচ্ছিরি অবস্থা তৈরি হবে। 
শুভ রং: লাল, বেগুনি ও সাদা
শুভ সংখ্যা: ৩, ৯, ১৭, ২২, ৩৭, ৪৫

কুম্ভ (২১ জানুয়ারি – ১৮ ফেব্রুয়ারি) নির্দিষ্ট কোনো কাজের মধ্যে ডুবে থাকতে পারবেন না। আপনার দারিদ্র্য আপনার শক্তি হবে। বাণিজ্যের জন্য কয়েকটি নতুন শহর ভ্রমণ হয়ে যাবে। পরিবারে শৃঙ্খলা ফিরে আসবে। গুরুস্থানীয় কারো আশীর্বাদ আজ কাজে লেগে যাবে। অতি দ্রুত সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করুন। আর্থিকভাবে সন্তুষ্ট থাকবেন আজ। 
শুভ রং: নীল, গাঢ় সবুজ ও বেগুনি
শুভ সংখ্যা: ১, ৩, ৯, ১৫, ২২, ৪৭

মীন (১৯ ফেব্রুয়ারি – ২০ মার্চ) বহির্বিশ্বের বাণিজ্যিক চাপ আপনার মাথাতেও ঘুরপাক খাবে। অনৈতিক কাজের জন্য সম্মান পাবেন কিন্তু মনে রাখবেন এর যথার্থ ফল আপনাকে হারে হারে টের পেতে হবে একদিন। মহা মূল্যবান সময় আপনার কেড়ে নিবে আপনার ভালোবাসার মানুষটি। বিপদ থেকে উদ্ধার পেয়ে যাবেন। অর্থ লাভে মনে শান্তি আসবে। 
শুভ রং: বেগুনি
শুভ সংখ্যা: ৪, ৭, ২৩, ৩৭, ৪০, ৪৫

 

ভাল লাগা-ভালবাসার ক্যাম্পাস
                                  

জীবনের বিশটি ফাগুন পেরিয়ে গেছে নীরবে। কিন্তু এবার বসন্তবরণে প্রিয় মুখের আনাগোনায় যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা। তাই প্রিয় ঋতু, প্রিয় মানুষ আর বিশেষ দিনকে স্মরণীয় করে রাখতে তার বর্ণিল পরিকল্পনা। বলছিলাম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের পরিচিত মুখ রাফিদের কথা। ভালবাসা দিবসে ভালবাসার মানুষকে খুশি করতে বিস্তর পরিকল্পনা তার। দুজনে মিলে কিনেছে পলাশ রাঙ্গা পাঞ্জাবি আর আবির ছাপে রঙ্গিন শাড়ি।

সকালে হল থেকে বেরিয়ে রাফিদের গন্তব্য তার বান্ধবী শেফার আবাসস্থল রোকেয়া হল। হাতে একুশটি লাল গোলাপ আর প্রিয় মানুষের জন্য উপহার রিনিঝিনি শব্দে বেজে ওঠা নূপুর। সূর্যোদয় থেকে শুরু হয়ে মতিহারের হরিৎ অরণ্যে দেখা মেলে অফুরান ভালবাসার। আর পড়ন্ত বিকেলে পদ্মাপাড়ে সোনালি আলোয় পূর্ণতা পায় ভালবাসা দিবসে ডানা মেলা স্বপ্নিল মনগুলো।

ভালবাসা দিবসের গল্পে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী ফারহিন শিমু বলেন, আসলে আমাদের জীবনে সবকিছুই আছে, তারপরও বিশেষ একজনের প্রয়োজন হয়। আর আমি মনে করি, এই ভালবাসা দিবসটিও বিশেষ মানুষটির জন্যই বিশেষ গুরুত্বের। আসলে পরস্পরের প্রতি ভালবাসার জন্য চাই অকুণ্ঠ সমর্থন, যা না থাকলে কখনই ভালবাসা হতে পারে না।

ভালবাসার অর্থটা যেন মনের বিশ্বাসের আবেদন। প্রতিটি মানুষ তার ভালবাসার অর্থ খুঁজতে কখনও কার্পণ্য করে না। আর যখন ভালবাসার জন্য বিশেষ দিবস থাকে তখন তো ভালবাসার মাত্রাটা আরও বেড়ে যায়। প্রতিটি দিনই তো ভালবাসার দিন, তবে বিশেষ মানুষগুলোকে ভালবাসার জন্যই এই ভালবাসা দিবসের আয়োজন। ভালবাসা দিবস কী? এমন প্রশ্নের উত্তরে এ কথা বললেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মইনুল হোসেন।

কথা হয় সমাজকর্ম বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফাহমিদা আক্তার জেনির সঙ্গে। তিনি বলেন, আমি মনে করি না এই দিবস শুধুমাত্র তরুণ-তরুণীর জন্য। এই দিন প্রিয় মানুষগুলোকে একসঙ্গে কাছে পাওয়ার অন্যতম দিন। তাই একটু পুরনো স্মৃতির পাতায় ঢেউ খেলিয়ে দীর্ঘশ্বাস ফেলে বলেন, এই দিনটাতে যদি প্রিয় মানুষটিকে কাছে পাওয়া যায় তবেই তা অর্থবহ হয়। তাই ভালবাসা খুঁজে পায় নিসর্গ প্রেমে গহনচারীর নির্মল ভালবাসার স্বপ্নগুলোকে। এমনকি অভিমানে ভেঙ্গে যাওয়া সম্পর্কও নতুন করে দানাবেঁধে অঙ্কুর ঘটায় অমলিন ভালবাসার।

কিছুদিন আগেও ক্যাম্পাসের পরিচিত মুখ ছিলেন শামীম রহমান। পড়াশোনা শেষে জীবিকার তাগিদে গত ডিসেম্বরে পাড়ি জমিয়েছেন ঢাকায়। ফেলে গেছেন অসংখ্য স্মৃতির ডালি। সেই সঙ্গে একটি প্রিয় মুখ। দুই বছর যাকে একদিনের জন্যও না দেখে থাকেননি। প্রেমিকা চতুর্থ বর্ষে পড়ায় রাবিতে থাকতে হবে আরও কিছুদিন। গত ভালবাসা দিবসেও দুজনে দুজনার হয়ে সময় কাটিয়েছিলেন প্রিয় ক্যাম্পাসে। মুঠোফোনে কথা হলো তার সঙ্গে। বললেন, ‘দিনটি আমাদের জন্য ছিল অন্যদিনের থেকে আলাদা। আমি পাঞ্জাবি আর ও শাড়ি পরে দুজনে মিলে বেড়িয়েছিলাম সারাদিন। কিন্তু এ বছর সে সুযোগ আর হবে না। তাতে কী, কথা হবে মুঠোফোনে। মনটা থাকবে প্রিয় ক্যাম্পাসে।’ তবে শুধু এদিনেই নয়, বছরের প্রতিটি দিনই হোক ভালবাসাময়- এমনটিই আশা তার।

আরেক শিক্ষার্থী সমাজবিজ্ঞান বিভাগের লিপিকা বিশ্বাস বলেন, ‘ভালবাসার ভিত্তিই হলো বিশ্বাস। যদি ভালবাসায় একে অপরের প্রতি বিশ্বাস না থাকে তবে সেটা ভালবাসা নয়। শর্তারোপ করে কখনও ভালবাসার অর্থ বোঝা যায় না। এর জন্য প্রয়োজন একে অপরের প্রতি অগাধ বিশ্বাস। প্রত্যেক বছর এই দিনটাতে সবাই একটু ভিন্নভাবেই প্রিয়জনকে কাছে পেতে চায়। আমারও এই দিনটাতে বিশেষ পরিকল্পনা আছে।’

মোবাইল ফোনে কথা বলছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী। কথা শেষে জিজ্ঞাসা করতেই তিনি বলেন, ‘প্রিয়জনের সঙ্গে কথা বললাম। আসলে ভালবাসা প্রতিটি মুহূর্তের, এটা কোন দিবসের গ-িতে অনুভব করা যায় না। তবে এই দিনটা প্রিয় মানুষকে একটু ভিন্নভাবে কাছে পাওয়ার দিন। এই ভালবাসা দিবসেই প্রিয়জনকে উপহার দিয়ে চমকে দেয়া যায়। একটু বাইরেও ঘুরতে যাওয়া যায়। সত্যিই এই দিনটাকে একটু আলাদাভাবেই প্রিয় মানুষটির সঙ্গে কাটানো যায়।’

অজস্র রক্ত রাঙ্গা গোলাপ আর হাসনাহেনার সুবাসে ভরপুর থাকে রাবির শহীদ মিনার চত্বর। সেখানে দিনভর চলে প্রেমিক-প্রেমিকার আড্ডা। বাগানের এক কোনায় হাতে হাত রেখে গল্প করছে রাজ আর অর্পিতা। ভালবাসা দিবস নিয়ে তাদের পরিকল্পনার কথা জিজ্ঞাসা করতেই এক চিলতে হাসি ফুটে ওঠে দুজনের ঠোঁটের কোনায়। আর এই হাসির কারণ ব্যাখ্যা করেন অর্পিতা নিজেই। বলেন, ‘গত বছরের শুরুতে ফেসবুকে পরিচয় হয় আমাদের দুজনের। এরপর মোবাইলে কথা। ওর হাবভাবে বুঝতাম ও আমাকে পছন্দ করে, কিন্তু দুজনই মুখ খুলতাম না। এভাবে এক মাস পার হতেই না বলা কথাটিকে বলার বাধ্যবাধকতায় নিয়ে যায় ভালবাসা দিবস। বিকেলে দেখা, এরপর ফোনে কথা আর পরে এসএমএসে সে জানায় যে আমাকে ভালবাসে। আমিও আর বেশি সময় না নিয়ে মনের কথাটিকে খুদেবার্তায় পাঠিয়ে দিই প্রিয় মানুষটিকে। তাই আমাদের জীবনে প্রতিটি ভালবাসা দিবস থাকবে প্রথম ভালবাসার স্মৃতি হয়ে। এরপর থেকে এক বছর হলো দুজনে একই পথে হাঁটছি আর ভবিষ্যতেও হাঁটব।’

তবে ভালবাসা দিবস শুধু প্রেমিক যুগলের- এ কথা মানতে নারাজ অনেকেই। তাদের মতে এটা সর্বজনীন ভালবাসার দিন। তাই অনেক সময় বন্ধুরা আবার বিভিন্ন সংগঠন মিলে আয়োজন করছে নানা অনুষ্ঠানের। তাপসী রাবেয়া হলের শিক্ষার্থী কেয়া, জয়ি, তৃষা- তিন বান্ধবী মিলে ভালবাসা দিবসে পরিকল্পনা করেছেন পিকনিক করার। সকালে ঘুম থেকে উঠে রান্নার কাজ আগে শেষ করবেন তারা। রান্না করবেন তিনজনের পছন্দের কিছু খাবার। এরপর হলের ভেতরে পুকুরে গোসল করবেন, সাঁতার কাটবেন বান্ধবীরা মিলে। গোসল শেষে হলের মাঠে রোদে বসে একসঙ্গে খাওয়া সেরে ঘুরতে বেরোবেন ক্যাম্পাসে। আর পছন্দের জায়গাগুলোতে ছবি তুলে বাঁধিয়ে রাখবেন স্মৃতির মণিকোঠায়। এগুলো সাক্ষী হয়ে থাকবে তাদের টক-ঝাল-মিষ্টি বন্ধুত্বের।

ভালবাসা দিবসে সবাই মিলে মজা করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাকসু ভবনের সংগঠনগুলো মিলে আয়োজন করছে চড়ুইভাতির। অল্প করে চাঁদা, সবাই মিলে রান্না আর বিস্তর গান-গল্পের আড্ডার পরিকল্পনা এঁটেছেন তারা।

প্রিয়জনের সঙ্গে দেখা করতে অনেকেই ছুটে এসেছেন এই ক্যাম্পাসে। শত ক্রোশ দূরত্ব অতিক্রম করে তারা ছুটে এসেছেন বিশেষ দিনে জীবনের কাক্সিক্ষত মানুষটিকে একবার দেখতে। হাজারো মনের চাওয়া-পাওয়া প্রজাপতি ডানায় ভর করে রং ছড়ায় অনন্ত যৌবনা এই ক্যাম্পাসে। 

কোরিয়াতে এক আসরে ৩০০০ বিয়ে
                                  

আমরা আসরে একসঙ্গে ১০০, ২০০ তারও বেশি লোকের বিয়ের খবরের কথা শুনেছি। এমন এক অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটেছে দক্ষিণ কোরিয়াতে, কিন্তু অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি দক্ষিণ কোরিয়ায় একই আসরে হয়েছে ৩ হাজার যুগলের বিয়ে।

এমনই ৬২টি দেশের উক্ত সংখ্যক জুটি দেশটির এক গির্জায় বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হয়। খবরে বলা হয়, গণবিয়ে উপলক্ষ্যে এক অনুষ্ঠানে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রায় ১২ হাজার জুটি ইন্টারনেটের মাধ্যমে আবেদন করে। এদের মধ্যে ৩ হাজার যুগলকে বাছাই করা হয়। বিয়েতে সাক্ষী ও অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আরো প্রায় ২২ হাজার ব্যক্তি।

১৯৫৪ সালে গির্জাটি প্রতিষ্ঠা করেন রেভারেন্ড সান মাইয়ং মুন। তিনি ২০১২ সালে ৯২ বছর বয়সে মারা যান। মুনের অনুপস্থিতিতে এ গণবিয়ের উদ্বোধন করেন তার স্ত্রী হাক জ্যা হান মুন। উল্লেখ্য, ১৯৬০ সালে প্রথম ওই গির্জায় গণবিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। তারপর থেকে নিয়মিতভাবে তা হচ্ছে।

অস্ট্রেলিয়ার হ্রদে এ কোন প্রাণী!
                                  

গভীর সমুদ্রের বিদঘুঁটে এ প্রাণীটি দেখতে কুমির আর সাপের মিলিতরূপ। ঢেউয়ে মৃতাবস্থায় অস্ট্রেলিয়ার এক হ্রদের তীরে ভেসে উঠেছে রহস্যময় এ প্রাণীটি।

ইথান টিপার অদ্ভুত এ প্রাণীর ছবি তুলেছেন নিউ সাউথ ওয়েলসের ম্যাককুরি হ্রদ থেকে। কেউ এ প্রাণীটকে শনাক্ত করতে পারেন কিনা তা জানার জন্যই তিনি অনলাইনে এ ছবিগুলো পোস্ট করেন।সোশ্যাল মিডিয়াতে ছবি দেখে অনেকে বলেছেন এটি বড় হেয়ারটেইল হতে পারে। হেয়ারটেইল কাটলাসফিশ পরিবারভুক্ত। অন্যদিকে বাকিরা বলেছেন, ছবিটি ফটোশপে তৈরি।

কিন্তু অস্ট্রেলিয়ান মিউজিয়ামের মৎস্য সংগ্রাহক মার্ক ম্যাকগ্রাউদার ডেইলি মেইলকে জানান, তার ধারণা এটি একটি বাইনমাছ গোত্রের মাছ (pike eel)। অস্ট্রেলিয়ার পূর্ব উপকূলের গভীর জলের স্থানীয় প্রজাতি এরা।আমার ধারণা এটি জেলেদের জালে ধরা পড়েছিলো, পরে জেলেরা এটিকে ফেলে দেয়। জানান মার্ক।

বাইনমাছের শরীর লম্বাটে হয়। লম্বায় এরা বাড়ে ছয় ফুট পর্যন্ত। দীর্ঘ সরু মুখের প্রাগৈতিহাসিক প্রাণীর স্বরূপ মাছটির দাঁত সুতীক্ষ্ণ। নিশাচর এ ম‍াছটি খাবার শিকার করতে জলের একশো মিটার গভীর পর্যন্ত যায়। এদের খাদ্যতালিকায় রয়েছে- মাছ ও শক্ত আবরণযুক্ত সামুদ্রিক প্রাণী।


   Page 1 of 1
     ফিচার
স্মার্টফোনের জন্য ইউটিউবের নতুন ফিচার
.............................................................................................
যে ৬ দেশের মেয়েরা সবচেয়ে বেশি সুন্দরী
.............................................................................................
সালমানের বডিগার্ডের বেতন মাসে ১৯ লাখ!
.............................................................................................
ঘুম ভাঙাবে এবার স্মার্টবালিশ!
.............................................................................................
আজ কেমন যাবে: ৪ মে
.............................................................................................
ভাল লাগা-ভালবাসার ক্যাম্পাস
.............................................................................................
কোরিয়াতে এক আসরে ৩০০০ বিয়ে
.............................................................................................
অস্ট্রেলিয়ার হ্রদে এ কোন প্রাণী!
.............................................................................................

সম্পাদক ও প্রকাশক মো: আবদুল মালেক, যুগ্ন সম্পাদক: নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া । সম্পাদক র্কতৃক ২৪৪ ( প্রথম তলা ) ৪ নং জাতীয় স্টেডিয়াম, কমলাপুর, ঢাকা -১২১৪ থেকে প্রকাশিত এবং স্যানমিক প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজেস, ৫২/২ টয়েনবি র্সাকুলার রোড, ঢাকা -১০০০ থেকে মুদ্রিত । ফোন:- ০২-৭২৭৩৪৯৩, মোবাইল: ০১৭৪১-৭৪৯৮২৪, E-mail: info@dailynoboalo.com, noboalo24@gmail.com Design Developed By : Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD